ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
182
ঈদের বাজারে বিদেশি পোশাক
Published : Monday, 3 June, 2019 at 12:00 AM
ঈদের বাজারে বিদেশি পোশাক‘মেড ইন ইন্ডিয়া’য় সয়লাব যশোর শিরোনামে কালের কণ্ঠ’র শেষের পাতায় যে খবরটি প্রকাশিত হয়েছে তাতে উৎকণ্ঠিত হওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে। শুধু যশোর কিংবা সীমান্তসংলগ্ন বড় বড় শহর নয়, দেশের সব শহরেই পাওয়া যায় ভারতীয় ও পাকিস্তানি পোশাক। ঢাকার বাইরেও এমন অনেক শোরুম পাওয়া যাবে, যেখানে দেশি কোনো কাপড় নেই, সব ভারতীয়। এর পরই আছে পাকিস্তানের কাপড়। তা ছাড়া চায়নিজ কাপড়ও বিক্রি হচ্ছে। বাহারি নামের এসব ভারতীয় বা পাকিস্তানি কাপড়ের প্রতি ক্রেতাদের আগ্রহ দেশের বুটিকশিল্পকে হুমকির মুখে ফেলছে। রাজধানীর মার্কেটগুলোতে বেশির ভাগ দোকানে ঝুলছে ভারতীয় ও পাকিস্তানি সালোয়ার-কামিজ। ভারতীয় সিরিয়ালের চরিত্রের নামে এগুলোর দেওয়া হয়েছে বাহারি নাম। মার্কেটগুলোতে শাড়ির বেশির ভাগই হয় ইন্ডিয়ান কাতান, নয়তো পাকিস্তানি সিল্ক। আছে লেহেঙ্গা, টপসসহ অন্যান্য পোশাকও। পিছিয়ে নেই পুরুষরাও। তাদের পোশাকে প্রাধান্য পাচ্ছে থাইল্যান্ড, জাপান ও চীন থেকে আসা সব পণ্য। তবে পুরুষদের পাঞ্জাবিতেও প্রতিবেশী দেশের প্রভাব চোখে পড়ার মতো। যেকোনো শাড়ির দোকানে গেলে দেখা যাবে ক্রেতার সামনে যে শাড়িগুলো তুলে ধরা হচ্ছে তার প্রায় সবই ভারতীয় শাড়ি। বাংলাদেশের বেনারসি কিংবা জামদানি শাড়ির সুনাম থাকলেও ঈদের বাজারে ক্রেতারা ঝুঁকছেন বিচিত্র নাম আর বাহারি ডিজাইনের ভারতীয় শাড়ির দিকে। প্রায় প্রতিটি দোকানে এক হাজার থেকে এক লাখ টাকা দামের হাজারো নকশার হাজারো ভারতীয় শাড়ি রয়েছে।
সীমান্ত পেরিয়ে এসব পণ্য আসছে সবার চোখের সামনেই। ঢাকার ব্যবসায়ী ও বুটিক হাউসের স্বত্বাধিকারীদের অভিযোগ, মার্কেট এত ওপেন ছিল না। তাঁরা বলছেন, এখন অনেক ওপেন হয়ে গেছে। এমনকি ওই সব দেশ থেকে বিশেষ করে ভারত থেকে লোকজন এসে হোটেল ভাড়া করে পুরোদমে বিজনেস করে এবং এই সিজনটাকে কাজে লাগিয়ে তারা চলে যাচ্ছে। ঢাকার ফ্যাশন হাউস ও বুটিক হাউসের স্বত্বাধিকারীদের মতে, ভারত থেকে এই পণ্যগুলো যদি যথাযথ পদ্ধতি অনুসরণ করে আসে, তাহলে কিন্তু দামের বিষয়টা প্রতিযোগিতায় আসবে না। তাদের অভিযোগ, অজস্র কাপড় কর ফাঁকি দিয়ে চোরাইপথে দেশে ঢুকছে। এ অভিযোগ আমলে নিয়ে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে অবিলম্বে অভিযান পরিচালনা করা দরকার। দেশের অর্থনীতিকে হুমকির মুখে ফেলে কিংবা সৃজনশীল শিল্পকর্মকে বাধার মুখে ফেলে দেয় এমন যেকোনো অবৈধ বাণিজ্য বন্ধ করা দরকার। আমাদের দেশের বুটিক ও ফ্যাশন হাউসগুলো নিজেদের বাজার সৃষ্টি করেছে। বিদেশি পোশাকের অবৈধ বাজার কেন তা ধ্বংস করবে?





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};