ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
197
শিক্ষককে পেটানো ও পানিতে ফেলার বিদ্যা
Published : Friday, 8 November, 2019 at 12:00 AM
শিক্ষককে পেটানো ও পানিতে ফেলার বিদ্যাআমীন আল রশীদ ||
শ্যামল কান্তি ভক্ত নামে নারায়ণগঞ্জের একজন শিক্ষককে কান ধরে ওঠবোস করানোর ছবিটা নিশ্চয়ই আপনার মন থেকে মুছে যায়নি। আপনি নিশ্চয়ই আরও মনে করতে পারছেন, ওই ঘটনার প্রতীকী প্রতিবাদ হিসেবে নানা শ্রেণিপেশার মানুষ নিজের কান ধরা ছবিতে ফেসবুকের দেয়াল ভরে ফেলেছিলেন। তারপর শ্যামল কান্তির কী হয়েছিল, সে তথ্য অনেকের জানা নেই। তবে সেই ঘটনাটি দৃশ্যপট থেকে আবছা হতে না হতেই এবার রাজশাহীতে একজন অধ্যক্ষকে টেনেহিঁচড়ে পুকুরে ফেলে দেওয়া হয়েছে-যার ভিডিও ফুটেজও ফেসবুক ও গণমাধ্যমে এসেছে।
আবার এই ঘটনাটির রেশ না কাটতেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষককে মারধরের দৃশ্যটি দেশবাসী টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর কল্যাণে লাইভ বা সরাসরি দেখেছে। তাদের যারা মেরেছেন, বলা হচ্ছে তারা ছাত্রলীগের নেতাকর্মী এবং তারা যে এই ঘটনা ঘটিয়ে, আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের হটিয়ে ৯ দিন পর উপাচার্যকে নিজ কার্যালয়ে নিয়ে গেলেন, তাতে ছাত্রলীগের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশেও ভোলেননি ভিসি অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম।
শ্যামল কান্তিকে কান ধরে ওঠবোস করিয়েছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। কিন্তু রাজশাহীর অধ্যক্ষকে পুকুরে ফেলে দিয়েছেন তারই কয়েকজন ছাত্র। কিন্তু শ্যামল কান্তিকে কান ধরে ওঠবোস করানোর বিচার দাবিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় যে প্রতিক্রিয়া হয়েছিল, রাজশাহীর ঘটনায় ঠিক সেভাবে প্রতিবাদ চোখে পড়ছে না। অথচ নারায়ণগঞ্জের চেয়ে এই ঘটনাটি কম গুরুতর নয়। আবার জাহাঙ্গীরনগর ইস্যুতে সোশ্যাল মিডিয়া গরম। ফলে এটা বোঝা মুশকিল যে, কখন কোন ইস্যুটি ফেসবুক ব্যবহারকারীরা ‘খাবেন’ বা কখন কোনটি ভাইরাল হবে।
শ্যামল কান্তি এখনও বেঁচে আছেন। তার দুর্ভাগ্য, তাকে কান ধরে ওঠবোস করানোর বিচার না হলেও বা যার নির্দেশে তাকে প্রকাশ্যে এমন নির্মম অপমান করা হয়েছিল, তিনি জাতীয় সংসদে বহাল তবিয়তে থাকলেও তারই মতো আরেকজন শিক্ষককে পুকুরে নিক্ষেপের কথা তাকে শুনতে হলো। রাজশাহীর এই ঘটনায় শ্যামল কান্তির অনুভূতি জানার জন্য তাকে ফোন দিয়েছিলাম। তিনি ঘটনাটি শুনে অনেকক্ষণ চুপ করে দেখে শুধু এটুকু বললেন, ‘রাজনৈতিক বিষয়। আমার কিছু বলার নেই।’ গত জুলাই মাসে অবসরে গেছেন শ্যামল কান্তি। কিন্তু কথা বলে মনে হলো, তিনি ভালো নেই।
রাজশাহীর ঘটনা ২ নভেম্বর সকালের। পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের দু’জন শিক্ষার্থী কম উপস্থিতির কারণে ফরম পূরণ করতে না পারায় অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দীন আহম্মেদের কাছে যান এবং অনৈতিকভাবে পরীক্ষার ফরম পূরণের আবদার করেন। এ নিয়ে অধ্যক্ষের সঙ্গে তাদের বাকবিত-া হয়। এর জেরে তাকে টেনে-হিঁচড়ে পুকুরে ফেলে দেওয়া হয়। দেশের ইতিহাসে একজন কলেজ অধ্যক্ষকে এভাবে টেনেহিঁচড়ে পুকুরে ফেলে দেওয়ার ঘটনা সম্ভবত এটিই প্রথম। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বিচার দাবিতে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভও করেছেন। আশা করা যায়, এর সুষ্ঠু বিচার হবে। যেহেতু অপরাধীরা ধরা পড়েছে এবং সিসি ক্যামেরার ছবিও আছে।
যদিও শিক্ষক পেটানোর ঘটনা দেশে নতুন কিছু নয়। গত জুলাই মাসেই চট্টগ্রামের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের উপদেষ্টা অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদের গায়ে কেরোসিন ঢেলে দিয়েছিলেন তারই কয়েকজন ছাত্র। তার ‘অপরাধ’ ছিল, নিয়মিত কাস না করায় তিনি কয়েকজন শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দিতে দেননি।  এর আগে মে মাসে পাবনা সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজে উচ্চমাধ্যমিকের উচ্চতর গণিত পরীক্ষা চলার সময় অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে দুই শিক্ষার্থীর পরীক্ষার খাতা কিছু সময়ের জন্য জব্দ করার ‘অপরাধে’ মাসুদুর রহমান নামে এক শিক্ষকের ওপর কলেজের গেটেই  হামলা চালান ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কয়েকদিন আগেই টাঙ্গাইলের মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের নেতাদের হাতে শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার প্রতিবাদে একসঙ্গে ৫৬ জন শিক্ষক প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করেছেন।
কেন এই এই ঘটনাগুলো ঘটে বা ছাত্র নামধারী তরুণরা তাদের বাবার তুল্য শিক্ষকদের গায়ে কীভাবে হাত তুলতে পারেন বা তাকে টেনেহিঁচড়ে প্রকাশ্য দিবালোকে পুকুরে ফেলে দিতে পারেন? এর খুব পরিষ্কার জবাব ছাত্র রাজনীতির নামে ক্যাম্পাসে ক্ষমতার বিস্ফোরণ ও দলীয় দাসত্ব। যে ছাত্ররা এই ঘটনা ঘটিয়েছেন, তাদের প্রত্যেকের রাজনৈতিক পরিচয় আছে। রাজনৈতিক পরিচয় ছাড়া একজন সাধারণ ছাত্রের পক্ষে শিক্ষককে টেনেহিঁচড়ে পানিতে ফেলা তো দূরে থাক, তর্ক করারও সাহস হওয়ার কথা নয়।
জাহাঙ্গীরনগরের ভিসির দুর্নীতির বিরুদ্ধে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলছিল প্রায় তিন মাস ধরে। শুরু থেকেই এই আন্দোলনের পাল্টা হিসেবে ভিসিপন্থী হিসেবে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও মাঠে ছিলেন। কিন্তু ভিসির পদত্যাগ দাবিতে যখন একটি পক্ষ তার বাসভবনের সামনে অবস্থান নিলো, তখনই মুখোমুখি হয় দুপক্ষ। ৫ নভেম্বর সকাল থেকেই টের পাওয়া যাচ্ছিলো কিছু একটা হবে এবং হয়েছেও তাই। দুপুরের দিকে ভিসিপন্থীরাও তার বাসভবনের সামনে যান এবং ভিসিবিরোধীদের সাথে প্রথমে কথাকাকাটি এরপর ধাক্কাধাক্কি অতঃপর ছাত্রলীগের হামলা। পুরো বিষয়টি যে আগে থেকে ঠিক করা তা ওই দৃশ্যটি যারা টেলিভিশনে লাইভ দেখেছেন তাদের কাছে স্পষ্ট। দুটি ছাত্রসংগঠনের মধ্যে সংঘর্ষের চিরায়ত দৃশ্য ছিল না এটি। এখানে পরিষ্কার দেখা যায় খোদ শিক্ষকরাই মার খাচ্ছেন তাদের সন্তানতুল্য ছাত্রদের হাতে। উপাচার্য অবশ্য এই ঘটনার পরে সাংবাদিকদের কাছে তাৎক্ষণিকভাবে যে প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন, সেখানে দাবি করেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপি-জামাতপন্থী শিক্ষকদের ইন্ধনে তার বিরুদ্ধে আন্দোলন হচ্ছে।
এই অভিযোগও নতুন কিছু নয়। যখনই কোথাও কোনও আন্দোলন গড়ে ওঠে, সেটি যত জনগুরুত্বপূর্ণ ইস্যুই হোক না কেন, শুরুতেই এটা বলে দেওয়া হয় যে, এটি বিএনপি-জামায়তের লোকেরা করেছে। এমনকি প্রগতিশীল বা বামপন্থী সংগঠনের লোকেরা কোনও আন্দোলন গড়ে তুললে সেখানেও বিএনপি-জামায়তে ষড়যন্ত্র খোঁজা হয়। এতে করে জনমনে যে প্রশ্নটি ওঠে তা হলো, দেশে বিএনপি-জামায়াত এত শক্তিশালী?
সম্প্রতি গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি নাসিরউদ্দিনও তার অপকর্মের বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকেও বিএনপি-জামায়াতের ষড়যন্ত্র বলে চালানোর চেষ্টা করেছিলেন এবং সেখানেও তিনি ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনকে দিয়ে এই আন্দোলন দমন করার চেষ্টা করেছিলেন। যদিও তার সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয় এবং তাকে সরে যেতে হয়। দেখা যাচ্ছে, খোদ শিক্ষকদের একটি অংশই ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিজেদের লাঠিয়াল হিসেবে ব্যবহার করেন।
বছরের পর বছর ধরে আমাদের শিক্ষকরা নিজেরাই যে নিজেদের অবস্থান দুর্বল করেছেন, নানাবিধ অনিয়মের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছেন, তার ভুরি ভুরি উদাহরণ তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা কী ধরনের অন্যায় ও অনিয়মের সঙ্গে যুক্ত, সে বিষয়ে নিয়মিত সংবাদ গণমাধ্যমে আসে। তাদের পদত্যাগ ও অপসারণের দাবিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনও নিয়মিত ঘটনা। সুতরাং একজন অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপের বিচার দাবিতে একদিকে যেমন নাগরিকদের সোচ্চার হওয়া দরকার, তেমনি কারা আমাদের শিক্ষক হচ্ছেন, তাদের কতজন শিক্ষক হওয়ার যোগ্যÍসেই প্রশ্নও তোলা উচিত।
বস্তুত মেরুদ-হীন, সুবিধাবাদী, লোভী ও দলবাজ শিক্ষকদের আশকারার কারণেই কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র নামধারী কিছু তরুণ নিজেদের শিক্ষার্থী পরিচয় ছাপিয়ে অন্য কিছু হয়ে ওঠেন। যে কারণে তারা পিতৃতুল্য শিক্ষককে কাসরুম থেকে বের করে দিতে পারেন; মারতে পারেন; টেনেহিঁচড়ে পুকুরে ফেলে দিতে পারেন। অর্থাৎ তাদের ক্ষমতার উৎসটি প্রথমত রাজনৈতিক দল, দ্বিতীয়ত কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। রাজনৈতিক পরিচয় না থাকলে দুজন শিক্ষার্থীর মধ্যে কোনও তফাৎ নেই এবং তিনি শিক্ষককে কাসরুম থেকে বের করে দেওয়ার কথা কল্পনাও করতে পারেন না। কিন্তু যখনই তার একটি রাজনৈতিক পরিচয় দাঁড়িয়ে যায় বা তিনি যখনই কোনও না কোনোভাবে রাজনৈতিক ক্ষমতার বলয়ের ভেতরে অবস্থান বা ঘোরাঘুরি করেন, তখনই তার সঙ্গে তার আরেকজন সহপাঠীর সুস্পষ্ট পার্থক্য তৈরি হয়ে যায়।
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়-বুয়েটে আবরার ফাহাদ নামে একজন শিক্ষার্থীকে তার যে সহপাঠীরা পিটিয়ে মেরে ফেললেন, তাদের কেউ শুধুই সাধারণ শিক্ষার্থী নন। প্রত্যেকের রাজনৈতিক পরিচয় ছিল। ঘটনার পরে বহিষ্কার হয়েছেন বটে। কিন্তু রাজনৈতিক পরিচয় ছিল বলেই তারা তাদের একজন সহপাঠীকে পিটিয়ে হত্যার সাহস পেয়েছিলেন। এই পরিচয় না থাকলে পিটিয়ে হত্যা তো দূরে থাক, কারো সাথে জোরে কথা বলারও সাহস তাদের হতো না। একইভাবে পুরান ঢাকায় বিশ্বজিৎ নামে একজন দর্জিকে প্রকাশ্যে চাপাতি দিয়ে যারা কুপিয়ে খুন করলেন তারাও সবাই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এবং সংলগ্ন কবি নজরুল কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন। তাদেরও রাজনৈতিক পরিচয় ছিল। আর এই পরিচয়টিই অন্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গে তাদের স্পষ্ট পার্থক্য গড়ে দিয়েছে এবং তাদের বেপরোয়া ও খুনিতে পরিণত করেছে।
এসব ঘটনার পরে ক্যাম্পাসে ছাত্ররাজনীতি থাকবে কি থাকবে না, থাকলেও সেটির ধরন কী হবেÍমাথা ব্যথা হলেই মাথা কেটে ফেলতে হবে কি না, ইত্যাদি বিতর্ক সামনে এসেছে। যখন এ বিষয়ে আলোচনা ওঠে তখন ঘুরেফিরে ষাট ও আশির দশকের ছাত্র আন্দোলনের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসও সামনে আনা হয়। কিন্তু গত তিন দশকে বাংলাদেশে ছাত্ররাজনীতির, বিশেষ করে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্ররাজনীতির কী অর্জন, মূল দলের অ্যাসাইনমেন্ট বাস্তবায়ন আর দলীয় দাসত্ব ছাড়া প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর ছাত্র সংগঠন আর কী করেছে বা করছে-তা নিয়েও জনমনে প্রশ্ন আছে।
অনেকে ক্যাম্পাসের এসব ঘটনাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে ভাবতে পছন্দ করেন এবং প্রতিটি ঘটনার পরেই অভিযুক্তদের বহিষ্কার, কখনো সখনো সংশ্লিষ্ট ক্যাম্পাসে অভিযুক্ত ছাত্র সংগঠনের কার্যক্রম ও কমিটি স্থগিতও করা হয়। এর মধ্য দিয়ে একধরনের জবাবদিহিতা আছে বলে প্রমাণের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু যে পদ্ধতির ভেতরেই গলদ, সেখানে এরকম বহিষ্কার, স্থগিত বা গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে সংশ্লিষ্ট ঘটনাগুলো আড়াল করা গেলেও ক্যাম্পাসে ক্ষমতার রাজনীতির যে নগ্ন দিক, সেটি মুছে ফেলা যায় না।
লেখক: বার্তা সম্পাদক, চ্যানেল টোয়েন্টিফোর


জোনাস আন্দ্রের সাথে আড্ডা
ভবঘুরে জীবনের দর্শন...
গত সোমবার লিংকবাংলায় অনুষ্ঠিত এই আড্ডায় সমমনা মানুষজন এসেছিলেন! ভাব বিনিময়ে প্রানবন্ত হয়ে উঠেছিল একটি গোটা সন্ধ্যা! সবাই কমবেশি অংশ নিয়েছিলেন আলোচনায়! সমৃদ্ধ হয়ে উঠেছিল পুরো পরিবেশটি! আড্ডা শেষেও ঘরে ফিরে যেতে চাইছিলেননা অনেকেই! যারা এই আড্ডা আয়োজনে অংশ নিতে পারেননি তারা আমাদের আগেই জানিয়েছিলেন আড্ডার সারাংশটুকু যাতে তাদের জানানো হয়! আড্ডার ধারণ এবং টুকে রাখা থেকে তাই অতি সংক্ষেপে কিছু লিখবার চেষ্টা!
-
প্রথমেই যে বিষয়টি আলোচনা হয়েছে তা হলো ভবঘুরের সংজ্ঞা! এর সামাজিক ইঙ্গিত যাই থাকুক ভবঘুরের আসল মানে হচ্ছে ভব অর্থাৎ পৃথিবীর সাথে ভারসাম্য রেখে যে ঘুরে! যে কোনো ধরণের ভবঘুরেবৃত্তি বা ভ্রমণ নিজেকে সমৃদ্ধ করে! বিশেষ করে তা যদি প্রাণ-প্রকৃতির মধ্য দিয়ে হয়! নিজের ভবঘুরে মাত্রাকে যত বেশি গভীর আর ব্যাপক করা যায় তত নিজের জন্যেই ভালো! জোনাস আন্দ্রের মত যদি ভবঘুরে সত্তাটাকে জীবনের প্রধান করে ফেলা যায় তাহলেতো রীতিমত নির্বাণ লাভ!
-
আলোচনায় এসেছে আমাদের ভোগবাদী সত্তা! আমরা যেভাবে জিনিসপত্র-পণ্য দিয়ে নিজেদের জীবনকে ভারী-কান্ত করে ফেলেছি সেই বিষয়টি যে আসলে বাজার সংস্কৃতির একটি ফাঁদ তা বুঝতে ব্যর্থ হলে নিজেদেরই বিপদ! জীবনের প্রয়োজন মেটাতে গিয়ে আসলে আমরা জীবনবিমুখ হয়ে গেছি! জীবনের দিকে তথা পৃথিবীর প্রাণ-প্রকৃতির দিকে তাকাবার জন্যে আমাদের কোন সময় হাতে নেই! আর একটু সময় বের করে আমরা তথাকথিত 'হলিডে' যা করছি তা মূলত নাগরিক জীবনেরই বন্দিত্বের বর্ধিত রূপ!-
আলোচনা হয়েছে যে ঘুরতে-দেখতে হলে আসলে প্রথম বেরিয়ে পরতে হয়! বেরিয়ে পরলেই সব সমস্যার সমাধান! ইচ্ছাই উপায়কে জোগাড় করে! সারাজীবন যারা উপায় নিয়ে চিন্তা করে জোগাড় করতে করতেই বা সম্পদ জড়ো করেই একসময় তাদের জীবন শেষ হয়! পৃথিবী মূলত বন্ধুবৎসল এবং সহযোগিতাপূর্ণ! একমাত্র ভবঘুরে হলেই সেই অপূর্ব-মানবিক-আমন্ত্রণপূর্ন পৃথিবীর দেখা মেলে! আয়েশি পর্যটক বা হলিডে মেকার নাগরিক কখনোই সেই পৃথিবীর খোঁজ পাননা!
-
আলোচনা হয়েছে যে আমাদের বেশিরভাগ শত্রু হচ্ছে কাল্পনিক! আমাদের ভীরুতাই মূলত আমাদের প্রতিবন্ধক! আমরা আগেই ধরে নেই যে কাজটা আমরা করতে পারবো না! তখন আমাদের সেই ঋনাত্বক ভাবনার স্বপক্ষেই আমরা উপাদান জড়ো করি! জীবনের কাছে যাবার আগেই আমরা আগাম পরাজিত-বিচ্ছিন্ন থাকি! প্রচলিত শিক্ষা এবং পারিবারিক-সামাজিক মূল্যবোধ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমাদের পঙ্গু-কৃপণ-ভীরু বানিয়ে রাখে! ভবঘুরে জীবন এই সমস্ত প্রতিষ্ঠান-প্রতিষ্ঠার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে থাকা নির্মম সত্য! ভবঘুরে সত্তা--আউট অব দ্য বক্স!
-
আলোচনার আরো বলা না-বলা কথাগুলো ছিল--ভবঘুরে মানে হচ্ছে নিজেকে প্রথম জয় করা! ভবঘুরে জীবন মানে স্বাধীনতার প্রকৃত স্বাদ গ্রহণ! ভবঘুরে মানে হচ্ছে আত্ম-আবিস্কার! ভবঘুরে মানে হলো সমাজ আবাহন এবং আলোর আরোহন! ভবঘুরে হওয়া মানে প্রতিনিয়ত নিজেকেই অতিক্রম করে যাওয়া! ভবঘুরে জীবন মানে জীবনের এক নতুন বাস্তবতা নির্মাণ! সমাজ-জ্ঞানে ভরপুর থাকা! ভবঘুরে জীবন মানে নিজেরই এক ছায়া-আনন্দ-সাথী সৃষ্টি যিনি কখনোই আপনাকে ত্যাগ করবে না! ভবঘুরে জীবন মানে প্রাণ-প্রকৃতির সার্বক্ষণিক আলিঙ্গন-আরাধনা! সর্বোপরি ভবঘুরে মানে হচ্ছে জীবনের উপার্জনহীন এক স্বাবলম্বিতা অর্জন! এর অর্জনই হচ্ছে ঘুরতে থাকা!
-
আমাদের সবার মাঝেই ভবঘুরে সত্তা আছে! এই সত্তাকে কে কত মাত্রায় সক্রিয় বা নিষ্ক্রিয় রাখবো তাতেই আমাদের সক্ষমতা অক্ষমতার বিষয়টি বিম্বিত হয়!
জয় হোক ভবঘুরে জীবনের...






© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : hridoycomi[email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};