ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
105
কুমিল্লায় বঙ্গবন্ধু
Published : Friday, 24 January, 2020 at 12:00 AM
কুমিল্লায় বঙ্গবন্ধুআবুল কাশেম হৃদয় ||
৩ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধুর নামে পূর্ব পাকিস্তানের জননিরাপত্তা আইনের ২ ধারার ৭ (৩) ৪-গ উপ-ধারায় আরো একটি মামলা দায়ের করা হয়। এ নিয়ে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে সে সময় ৫টি মামলা দায়ের করা হয়।৩৭ মামলা ও হয়রানি উপেক্ষা করেই চলে বঙ্গবন্ধুর এগিয়ে চলা। পূর্ব বাংলার মানুষের মুক্তির লড়াই। ১৯৬৪ সালের ১২ ডিসেম্বর তিনি লঞ্চ যোগে কুমিল্লার দাউদকান্দি আসেন। সেখান থেকে যান কুমিল্লার লাকসামে জনসভায় বক্তৃতা করতে। বিকালে জনসভায় তিনি বক্তব্য রাখবেন এবং সে দিনই ঢাকায় ফিরে যাবেন। ১২ ডিসেম্বর সকালে তিনি রওনা হন। সাথে আওয়ামী লীগ দলীয় এমএনএ লুৎফর রহমান খান ও এডভোকেট এমএ রব। বিকালে কুমিল্লার লাকসামের পাবলিক লাইব্রেরি ময়দানে জনসভাটি অনুষ্ঠিত হয়। এতে লাকসামের নির্বাচনী কলেজের(ভোটার) ২৪৯ জন সদস্যের মধ্যে ২১৭ জন উপস্থিত ছিলেন।৩৮
জাতীয় পরিষদ সদস্য সৈয়দ হাবিবুল হকের সভাপতিত্বে জনসভায় ন্যাপ নেতা দেওয়ান মাহবুব আলী, মুজিবর রহমান চৌধুরী, জাতীয় পরিষদ সদস্য মাহবুবুল হক, এডভোকেট আবদুর রব প্রমুখও বক্তৃতা করেন। জনসভা উপলক্ষে এডভোকেট আবদুর রব ঢাকা থেকে লাকসামে যান। জনসভায় এক ঘন্টা ধরে বক্তব্য রেখে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বলেন-
‘স্থায়ী গোলামির হাত থেকে নিজেদের এবং ভবিষ্যত বংশধরদের রক্ষার জন্য মাদারে মিল্লাতকে জয়যুক্ত করুন, আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন প্রকৃত অর্থে গোলামির বিরুদ্ধে আজাদী, একনায়কদের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র এবং একব্যক্তির শাসনের বিরুদ্ধে আইনের শাসনের সরাসরি সংগ্রাম। আপনাদের একথা স্মরণ রাখা উচিত, এ নির্বাচনে পরাজিত হলে দেশে রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে। আমাদের সংগ্রাম ন্যায়ের সংগ্রাম; আমরা অন্যায়ভাবে ক্ষমতা দখলকারী এক ব্যক্তির বিরুদ্ধেই সংগ্রাম চালিয়ে আসছি। নির্বাচনী কলেজের সদস্যরা দেশেরই সন্তান; তাই তাদের চোখেমুখেও আজ রোষবহ্নি ছাপ সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছে। নিজেদের রুটি-রুজির বিনিময়ে তারা জনসাধারণের স্বাধীনতা বিকিয়ে দিবেন না বলে আমরা নিশ্চয়ই আশা করতে পারি।”
হাজার হাজার লোকের সম্মুখে ভোটার সদস্যরা “আল্লাহু আকবর” ধ্বনি দিয়া মাদারে মিল্লাতকে ভোট দানের ওয়াদা করেন, তখন এক অপূর্ব দৃশ্য সৃষ্টি হয়।  জনসভার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শহীদ সোহরাওয়ার্দীর কর্মময় জীবনের উপর গৃহীত একটি আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন। পরে লাকসাম আওয়ামীলীগ নেতা অসুস্থ আবদুল আউয়ালের অবস্থা দেখতে তাঁর বাড়ি যান। সেখানে তিনি কিছু সময় কাটান।
১৯৬৫ সালের শুরু থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে তাঁর নানা বক্তব্যের জন্য রাষ্ট্রদ্রোহিতা মামলাসহ নানাভাবে হয়রানি অব্যাহত রাখে পাকিস্তানের সামরিক সরকার। একটি মামলায় একবছরের সাজাও দেওয়া হয়। ১৯৬৫ সালের ২৫ এপ্রিল পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ও পরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে সরকারি হয়রানির প্রতিবাদে কুমিল্লা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আহমদ আলী কুমিল্লা থেকে এক বিবৃতি প্রদান করেন।৩৯ বিবৃতিটি দৈনিক ইত্তেফাকে ছাপা হয় ২৭ এপ্রিল। বিবৃতিতে আহমদ আলী বলেন- ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামীলীগের প্রেসিডেন্ট শেখ মুজিবুর রহমানের উপর সাম্প্রতিক সরকারি হয়রানির গভীর নিন্দা করছি এবং এর পরিণতির জন্য সরকারকেই দায়ী হতে হবে। সরকারের উপলব্ধি করা উচিত যে, কোন প্রকার হয়রানিই জনগণের প্রকৃত দাবী-দাওয়ার কণ্ঠরোধ করতে পারবে না। জনগণ তাদের দাবী আদায়ের জন্য কৃতসঙ্কল্প।’





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};