ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
764
মুজিব শতবর্ষ আনন্দমেলা উপভোগ করলো লাখো মানুষ
Published : Sunday, 26 January, 2020 at 12:00 AM, Update: 26.01.2020 2:31:03 AM
মুজিব শতবর্ষ আনন্দমেলা উপভোগ করলো লাখো মানুষস্টাফ রিপোর্টার।। দেশের জনপ্রিয় অভিনেতা-অভিনেত্রী ও কন্ঠশিল্পীদের মনোমুগ্ধকর পরিবেশনা, আকর্ষণীয় লেজার শো, একশ আতশবাজির ঝলকানিতে কুমিল্লার লালমাইয়ের জামতলিতে অনুষ্ঠিত হলো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে আয়োজিত আনন্দমেলা। লাখো মানুষের উপস্থিতিতে আয়োজিত এ জমকালো আনন্দ মেলা আনন্দ হিল্লোলে উপভোগ করে কুমিল্লার মানুষ। কুমিল্লা-১০ নির্বাচনী এলাকার জনগণের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে ছিলো তারার মেলা। একে একে মঞ্চ কাঁপিয়েছেন দেশের জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী মমতাজ, জনপ্রিয় অভিনেতা সাকিব খান, জনপ্রিয় অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম, জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী রেশমি, আরেফিন রুমি, অনন্যা প্রমুখ। বিকাল থেকে শুরু হয়ে রাত পর্যন্ত চলা এ অনুষ্ঠানে উন্মোচন করা হয় মুজিব শতবর্ষ টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্টের ট্রফি। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল) এমপি, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের চেয়ারপার্সন নাফিসা কামাল, জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীর,  পুলিশ সুপার মো: নুরুল ইসলাম ট্রফি উন্মোচন করেন। এসময় সকল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তীব্র শীতের মধ্যে একের পর এক মনোমুগ্ধকর পরিবেশনায় মেতে থাকা লাখো মানুষের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের চেয়ারপার্সন নাফিসা কামাল।
মুজিব শতবর্ষ আনন্দমেলা উপভোগ করলো লাখো মানুষআবেগে আপ্লুত অর্থমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে তাঁর সংগ্রামী জীবনের স্মৃতিকথা তুলে ধরেন। তিনি কিভাবে লজিং থেকে শিক্ষা জীবন শুরু করে বিশ্বসেরা অর্থমন্ত্রী হয়েছে তা বর্ণনা করেন। এসময় পুরো অনুষ্ঠানে পিনপতন নীরবতা নেমে আসে। তিনি তার বক্তব্যে কেন এই প্রত্যন্ত এলাকায় ‘মুজিব শতবর্ষ আনন্দমেলা’ আয়োজন করা হলো তার ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন- প্রত্যেক এলাকার এমপিরা এ ধরনের আয়োজন করলে সাধারণ মানুষ বঙ্গবন্ধুর জীবন-সংগ্রাম ও দেশের জন্য আত্মত্যাগ সবকিছু জানতে পারবেন এবং সরকারের সফলতাও অবগত হবেন।
অনুষ্ঠানে অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিমের সম্মিলিত নৃত্য ছিলো মনোমুগ্ধকর। অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও বাংলার স্বাধীকার আন্দোলনের তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। এরপর একশত আতশবাজির ঝলকানিতে আলোকিত হয়ে উঠে অনুষ্ঠান অঙ্গন।
এর আগে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের চেয়ারপার্সন নাফিসা কামাল তার বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, আজকের অনুষ্ঠান কুমিল্লা-১০ নির্বাচনী এলাকায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ পালনের সূচনা মাত্র। পুরো বছর জুড়ে এর অনুষ্ঠান চলতে থাকবে।
আবেগতাড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স আমার টিম না, এটির মালিক কুমিল্লার জনগণ। যখন মাঠে ভিক্টোরিয়ান্স খেলে তখন আমি আমার কথা ভাবি না। আমি ভাবি কুমিল্লার জনগণের কথা। তারা ভাবছে, মনে কষ্ট পাচ্ছে, না আনন্দ পাচ্ছে আমি শুধু তা ভাবি।
তরুণ সমাজের প্রতি উদ্দেশ্য করে নাফিসা কামাল বলেন, প্রত্যেক স্কুলে আমরা একটা স্তম্ভ নির্মাণ করবো যাতে তরুণরা দেশ প্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়। এতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি, পতাকা ও সংগ্রামের ইতিহাস থাকবে।
এর আগে শনিবার বিকেলে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল কুমিল্লায় নিজ বাড়িতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সাংবাদিকদের কাছে বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ আগামী প্রজন্মের কাছে রেখে যেতে চাই। মন্ত্ররী বলেন, যার জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না, আজকে আমরা এখানে দাঁড়িয়ে কথা বলতে পারতাম না।  এটি অত্যন্ত শ্বাসত সত্য, এই শ্বাসত সত্যিটিকে আবার নতুন করে এলাকার মানুষের সামনে নিয়ে আসার উদ্দেশ্য হচ্ছে, যারা বঙ্গবন্ধুকে কাছ থেকে দেখেছেন, তার নির্দেশে যুদ্ধ করেছেন, তাদের জন্য এক ধরণের সিনারিও।  অনেকে শহীদ হয়েছেন, অনেকে আহত হয়ে এখনো আমাদের মাঝে আছেন। তাদেরকেও একত্র করা আমাদের মূল উদ্দেশ্য।
তিনি বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুকে দেখেছেন, তাদের কাছে বঙ্গবন্ধু এক রকম। এখনকার আমাদের যে তরুণ সমাজ, তারা বঙ্গবন্ধুকে দেখে নাই। এমনকি মুক্তিযুদ্ধও করার সুযোগ পায় নাই।  তাদের সাথে বঙ্গবন্ধুকে পরিচয় করিয়ে দেয়া। সে সময় কোনো কারণে যারা বঙ্গবন্ধুকে সামনে থেকে দেখেনি, তাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়া হলো আমাদের মূল লক্ষ্য  ও উদ্দেশ্য।
বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আনন্দ মেলা সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন,  আমি লক্ষ্য করলাম যে, কোনো একটা লক্ষ্যকে সামনে রেখে কাজ করলে সবাইকে সম্পৃক্ত করা যায়। সবাইকে সম্পৃক্ত করা না গেলে, আমাদের সমস্ত আয়োজন, সমস্ত উদ্দেশ্য ব্যর্থ হবে। আমি এই এলাকার নির্বাচিত এমপি। এখানে দশ লাখ লোকের বসবাস। আমার ভোটারের সংখ্যা সাড়ে পাঁচ লাখ। এখানে একটা বিরাট জনগোষ্ঠী।  আমি লক্ষ্য করলাম যে, আমি যদি এটি শুরু করতে পারি, তাহলে অন্যান্য এমপি, মন্ত্রী মহোদয়রা এগিয়ে আসবেন। এভাবে অনুষ্ঠানটি আয়োজন করতে।
মন্ত্রী আরো বলেন, গত কয়েক সপ্তাহ ধরে আমরা এই অঞ্চলের প্রত্যেকটি মানুষের কাছে ওয়ান টু ওয়ান গিয়েছি। তাদেরকে এই আয়োজনের সাথে সম্পৃক্ত করার চেষ্টা করেছি এবং সম্পৃক্ত করতে পেরেছি।  এটিই আমাদের সফলতা।  মানুষকে সম্পৃক্ত করে, তাদের সামনে একটি আদর্শকে উপস্থাপন করা, আদর্শটি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ। এই জাতীয় চেতনায় যারা বিশ্বাস করে না, তাদেরকে বিশ্বাসী করার জন্য এবং এই আদর্শকে আগামী প্রজন্মের কাছে, আমাদের তরুণ সমাজসহ আগামী প্রজন্মের কাছে, যারা এই পৃথিবীতে আসে নাই, তাদের কাছেও আমরা রেখে যেতে চাই।  আজকের এই দিনটি হবে একটি সেতুবন্ধন। আমাদের আজ এবং আগামীর মাঝে সেতুবন্ধনটি সফল হোক আপনারা দোয়া করবেন।
এসময় অর্থমন্ত্রীর মেয়ে নাফিসা কামাল বলেন, আমাদের স্বার্থকতা হচ্ছে কুমিল্লা-১০ আসনের সবাই একত্র হয়ে বঙ্গবন্ধুর চেতনায় এক হয়ে অনুষ্ঠানটিতে কাজ করেছে।
তিনি বলেন, অন্য অনুষ্ঠানের মধ্যে এই অনুষ্ঠানটির পার্থক্য একটাই, সেটি হলো বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন।  এই অনুষ্ঠান এর আগে কখনো আমাদের জীবনে আসেনি হয়নি, কখনো আসবেও না। বাঙালি জাতি হিসেবে এটি আমাদের সব চেয়ে সৌভাগ্য।







© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};