ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
160
কুমিল্লায় বঙ্গবন্ধু
Published : Tuesday, 11 February, 2020 at 12:00 AM
কুমিল্লায় বঙ্গবন্ধুআবুল কাশেম হৃদয় ||
বক্তৃতার এক পর্যায়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে জাতির জনক বলেন-
‘এত রক্ত দেয়ার পরে যে স্বাধীনতা এনেছি চরিত্রের পরিবর্তন অনেকের হয় নাই। এখনও ঘুষখোর, দুর্নীতিবাজ, চোরাকারবারী, মুনাফাখোর বাংলার দু:খী মানুষদের জীবনকে অতিষ্ঠ করে তুলেছে। দীর্ঘ তিন বছর পর্যন্ত এদের আমি অনুরোধ করেছি আবেদন করেছি হুমকি দিয়েছি চোরা নাহি শোনে ধর্মের কাহিনী। কিন্তু আর না। বাংলার মানুষদের জন্য জীবনের যৌবন আমি কারাগারে কাটিয়ে দিয়েছি। এ মানুষের দু:খ দেখলে আমি পাগল হয়ে যাই। কাল যখন আমি আসতেছিলাম ঢাকা থেকে এত দু:খের মধ্যে না খেয়ে কষ্ট পেয়েছে গায়ে কাপড় নাই কত অসুবিধার মধ্যে বাস করছে, হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ লোক দু পাশে দাঁড়িয়ে আছে আমাকে দেখবার জন্য। আমি মাঝে মাঝে প্রশ্ন করি তোমরা আমাকে এত ভালোবাস  কেন। কিন্তু যেই দু:খী মানুষ দিনভর পরিশ্রম করে তাদের গায়ে কাপড় নাই তাদের পেটে খাবার নাই তাদের বাসস্থানের বন্দোবস্ত নাই লক্ষ লক্ষ বেকার পাকিস্তানিরা সর্বস্ব লুট করে নিয়ে গেছে কাগজ ছাড়া আমার জন্য আর কিছু রেখে যায় নাই। বিলেত থেকে ভিক্ষা কইরা আমাকে আনতে হয়। আর এই চোরের দল আমার দু:খী মানুষের সর্বনাশ করে লুটতরাজ করে খায়। আমি শুধু ইমার্জেন্সি দেই নাই। এবার আমি প্রতিজ্ঞা করেছি যদি ২৫ বছর এই পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠির মধ্যে জিন্নাহ থেকে আরম্ভ করে গোলাম মোহাম্মদ, চৌধুরী মোহাম্মদ আলী. আইয়ুব খান, ইয়াহিয়া খান এর মধ্যে বুকের পাটা টান করে সংগ্রাম করে থাকতে পারি আর আমার ৩০ লক্ষ লোকের জীবন দিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করতে পারি, তাহলে পারবো না? নিশ্চয়ই ইনশাআল্লাহ পারব বাংলার মাটি থেকে এই দুর্নীতিবাজ ঘুষখোর, এই মুনাফাখোরী এই চোরাচালানদের নির্মূল করতে হবে। আমিও প্রতিজ্ঞা নিয়েছি তোমরাও প্রতিজ্ঞা নাও বাংলার জনগণও প্রতিজ্ঞা গ্রহণ করুক। আর না। সহ্যের সীমা হারিয়ে ফেলেছি। এই জন্যে জীবনের যৌবন নষ্ট করি নাই। এই জন্য শহীদরা রক্ত দিয়ে যায় নাই। কয়েকটা চোরাকারবারী, মুনাফাখোর, ঘুষখোর দেশের সম্পদ বাইরে বাইর করে দিয়ে আসে। জিনিস  গুদাম করে মানুষকে না খাওয়াইয়া মারে। উৎখাত করতে হবে বাংলার বুকের থেকে এদের। দেখি কতদূর তারা টিকতে পারে। চোরের শক্তি বেশি নাকি ঈমানদারের বেশি সেটাই এবার প্রমাণ হয়ে যাবে। অন্যায়ের কাছে কোনদিন মাথা নত করি নাই। বার বার পাকিস্তানিরা আমাকে ফাঁসিতে চেয়েছে। বার বার বুক টান করে আমি দাঁড়িয়ে রয়েছি। কারণ আল্লাহ আমার সহায় ছিল। বাংলার জনগণের দোয়া ছিল। এখনও সেই দোয়া আছে। ইনশাআল্লাহ তোমাদের সাহায্য তোমাদের সহানুভূতি তোমাদের কাজ দেশের জনগণের ভালবাসা আর ঈমানদার মানুষের সহযোগিতায় এই দুষ্কৃৃতকারীদের নির্মূল করতে হবে। আর একদল আছে যারা বিদেশির অর্থে বাংলার স্বাধীনতাকে নসাৎ করতে চায়। রাতের অন্ধকারে নিরাপরাধ মানুষকে হত্যা করে যারা বিদেশি আদর্শ বাংলার মাটিতে চালু করতে চায় তাদের বাংলার মাটিতে স্থান হবে না। কেমন করে একটা লোক নিজের দেশের মাতৃভূমিকে বিক্রি করতে পারে পয়সার লোভে ভাবতে আমি শিউরিয়ে উঠি। তোমরা মনে রেখ, আমার ছেলেরা- জীবনে তোমরা যে কাজে নেমেছ উপরে যারা তোমাদের হুকুম দেবে তোমরা ওয়াদা করলা এখুনিই তাদের হুকুম মানতে হবে। তুমি যদি তাদের হুকুম না মানো নিচে যারা আছে তারা তোমার হুকুম মানবে না। সেই জন্যেই তোমাকে হুকুম মানতে হবে।
জাতির পিতা হিসেবে আদেশ দিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বলেন-
‘আমি তোমাদের প্রধানমন্ত্রী, আসতে পারে অনেক প্রধানমন্ত্রী যেতে পারে অনেক। আমি তোমাদের প্রধানমন্ত্রী হয়ে কথা বলছি না, আমি তোমাদের জাতির পিতা হিসেবে আদেশ দিচ্ছি। কারণ জাতির পিতা একবারই হয় দুবার হয় না।  প্রধানমন্ত্রী অনেক হবে অনেক আসবে। প্রেসিডেন্ট অনেক হবে অনেক আসবে। সে হিসেবে আমি তোমাদের ভালবাসি তোমরা জানো। তোমরা সৎ পথে থেকো। মাতৃভূমিকে ভালবেসো। মনে রেখ তোমাদের মধ্যে যেন পাকিস্তানের মেন্টালিটি না আসে। তোমরা পাকিস্তানের সৈনিক নও। তোমরা বাংলাদেশের সৈনিক। তোমরা হবা আমার পিপলস আর্মি। তোমরা পেশাদার বাহিনী নও। তোমরা শুধু সামরিক বাহিনী নও তোমাদের দরকার হলে নিজে উৎপাদন করে খেয়ে তোমাদের নিজকে বাঁচতে হবে। এটা হবে আমার জনগণের বাহিনী। এটা হবে পিপলস আর্মি। এটা পাকিস্তানের পেশাদারী আর্মি হবে না। এদিকে তোমাদের খেয়াল রাখা দরকার। আর যেখানে অন্যায় অবিচার দেখবা চরম আঘাত করবা। ন্যায়ের পক্ষে দাঁড়াবা। গুরুজনকে মেনো। সৎ পথে থেকো। শৃঙ্খলা রেখো। তাহলে জীবনে মানুষ হতে পারবা। এটা তোমাদের ভুললে চলবে না। ইনশাআল্লাহ আমি গর্বিত। আমি যখন আমার সামরিক বাহিনীতে স্মাগলিং বন্ধ করার হুকুম দিলাম আমি নিশ্চয়ই গর্ব করে বলতে পারি ২৫ বছরে স্মাগলিং বন্ধ করতে পারে নাই। কিন্তু ইনশাআল্লাহ এবার শতকরা ৯৫ ভাগ স্মাগলিং আমার সামরিক বাহিনী বন্ধ করতে পেরেছে বিডিআরের সাহায্য নিয়ে। তাদের জনগণের সহযোগিতার প্রয়োজন। জাতির জনক বলেন, আমার বাংলায় বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি হবে এবং তা আমি দেখে যাবো। এটা জানতাম হবে ইনশাআল্লাহ হবে এটা বিশ্বাস ছিল। কিন্তু দেখে যাবো এটা ভাবি নাই। কিন্তু আল্লাহ আমাকে দেখালেন। আরো দেখতে চাই। সে কি জানো। সোনার বাংলা দেখতে চাই। আরো দেখতে চাই কি জানো। দু:খী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চাই। আরও দেখতে চাই এদেশের দু:খী মানুষ পেট ভরে ভাত খাক গায়ে কাপড় পরুক। অত্যাচার অবিচার জুলুম বন্ধ হয়ে যাক। এইটাই আমি দেখতে চাই। এজন্য সকলের কাছে আমার আবেদন আজ তোমাদের এ প্লাটফর্ম থেকে সামরিক বাহিনী বেসামরিক বাহিনী জনগণ সকলকে আবেদন করবো সংঘবদ্ধ হয়ে এর বিরুদ্ধে সংগ্রাম করো। আর দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করো। কাজ করবো না পয়সা দাও। ফ্যাক্টরিতে কাজ করতে হবে। উৎপাদন বাড়াতে হবে। কলে কারখানায় কাম করতে হবে। উৎপাদন বাড়াতে হবে। আর লাফানো চলবে না। লাফানো আমি আর এলাউ করবো না। তিন বছর করেছি আর নয়। কারণ দেশের সম্পদ না বাড়ালে দেশের মানুষ বাঁচতে পারে না।’৬৬





সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};