ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
1253
কুমিল্লার বাজারে আমের সমারোহ ক্রেতা নেই, ব্যবসায়ীরা হতাশ
Published : Friday, 26 June, 2020 at 12:00 AM, Update: 26.06.2020 2:57:38 AM
কুমিল্লার বাজারে আমের সমারোহ ক্রেতা নেই, ব্যবসায়ীরা হতাশজহির শান্ত: মৌসুমী ফলের এই সময়টাতে কুমিল্লায় নানা জাতের মুখরোচক আমে সয়লাব বাজার। নগরীর প্রধান প্রধান বাজারগুলোতে বাহারি নাম ও স্বাদের আমের পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানিরা। রসালো এ ফলের গন্ধে ম ম করছে চারপাশ। নির্দিষ্ট ফল বাজারগুলো ছাড়াও নগরীর মোড়ে মোড়েও আম নিবক্রি করছে ‘সৃজনাল ব্যবসায়ীরা’। পাশাপাশি ভ্যানে করে বিভিন্ন আবাসিক এলাকায় গিয়ে ‘আম আছে- আম’ বলে হাঁক ছাড়ছেন ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতারা। দামও তুলনামূলক কম।
কিন্তু তারপরও আমের এ ভরা মৌসুমেও কুমিল্লার বাজারগুলোতে ক্রেতার সংখ্যা খুই কম। করোনা সংক্রমণের ভয়ে এবং মানুষের এবসংস্পর্শ এড়াতে জনসমাগম এলাকায় আসছেন লোকজন। ফলে কুমিল্লার প্রধান প্রধান ফল বাজারেও ক্রেতাদের উপস্থিতি একেবারেই কম। এতে করে কম হচ্ছে বেচা-কেনা; লোকসানের মুখে ব্যবসায়ীরা।
কুমিল্লার বিভিন্ন ফলবাজার ঘুরে ব্যবসায়ী ও ক্রেতােেদর সাথে কথা বলে জানা গেছে, বাজারে চাহিদা মোতাবেক পর্যাপ্ত আম থাকায় এবং দামও তুলনামূলক স্বাভাবিক হওয়ায় বাজারে আসা ক্রেতারা খুশি। কিন্তু নগরীর অন্তত তিনটি বাজার ঘুরে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকির কারণে ক্রেতার সংখ্যা অনেক কমই দেখা গেলো। আর এতেই হতাশ ব্যবসায়ীরা। ক্রেতা কম থাকায় মিলছে না প্রত্যাশা অনুযায়ী দাম; ‘গন্ডগোল’ বেঁধে যাচ্ছে হিসেবের খাতায়।।
কুমিল্লার সবচেয়ে বড় ফল বাজার রাজগঞ্জে গিয়ে দেখা গেলো নানা জাতের ফলের পসরা সাজিয়ে বসেছেন বিক্রেতারা। তবে সব দোকানেই আমের আধিক্য। ক্রেতাদের চাহিদাও আমকে ঘিরেই। দোকান ঘুরে ঘুরে, গন্ধ শুঁকে রসালো ফল আম কিনছেন তারা। দরদামে তারতম্য দেখলে যাচ্ছেন আরেক দোকানে।
কুমিল্লার বাজারে আমের সমারোহ ক্রেতা নেই, ব্যবসায়ীরা হতাশব্যবসায়ী শাহআলম জানালেন, তার দোকানে ল্যাংড়া, হিমসাগর, হাড়িভাঙ্গা, আ¤্রপালি, শোষা, সুরমাসহ আরো দুয়েক প্রজাতির আম আছে। ঘুরে-ঘুরে ফিরে নির্দিষ্ট এ কয়েক প্রজাতির আম সব দোকানেই আছে। দামেও ভিন্নতা নেই। কিন্তু বাজারে ক্রেতা কম আসায় বিক্রি কম হচ্ছে।
তিনি বলেন, হাড়ি ভাঙ্গা ১০০ টাকা, ল্যাংড়া-আ¤্রপালি ও শোষা আম বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি দরে। অন্যবারের তুলনায় এবার দাম কম হলেও ক্রেতা না থাকায় অন্যান্য ব্যবসায়ীদের মতো তিনিও হতাশ।
নগরীর টমসমব্রিজ এলাকা থেকে কান্দিরপাড়ে আম কিনতে এসেছেন সরকারি চাকুরে আবদুল মান্নান। তিনি বলেন, এবারের আম অন্যান্য বছরের চেয়ে বেশ ভালোই মনে হচ্ছে। বাজারে ভিড় একটু কম থাকায় ভাবলাম কিছু আম কিনে নেই। পরে জনসমাগম বেড়ে গেলে আর কেনা হবে না।
করোনা সংক্রমণের ভয়ে এবছর অন্যান্য ফল তেমন কেনা হয়নি বলেও জানান তিনি।
নগরীর ঝাউতলা-ডিসি রোডের মোড়ে ভ্যানে করে আম বিক্রি করছেন মোসলেম মিয়া। তিনি বলেন, সকালে নিমসার বাজারে গিয়ে নির্দিষ্ট পরিমাণ আম কিনে এনে সারাদিন ভ্যানে করে বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করি।
মোসেল আগে একটি খাবার হোটেলে কাজ করতেন। করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরুর দিকে হোটেল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আয়ের উৎসও বন্ধ হয়ে যায় তার। পরে নিমসার বাজার থেকে ফল ও সবজি এনে বিক্রি শুরু করেন তিনি।
তার ভাষায়- ‘একেবারে আয়হীন থাকার চাইতে কম আয় অনেক ভালো।’
কুমিল্লার বিশিষ্ট চিকিৎসক ইকবাল আনোয়ার বলেন, মৌসুমী ফল স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। বাজারে এখন প্রচুর পরিমাণ ফল-ফ্রুট পাওয়া যাচ্ছে। ফল খেলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে। ভিটামিনের চাহিদা পূরণ হবে।
কুমিল্লায় এমনিতেই মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেশি। করোনাসহ যেকোনো ভাইরাস মোকাবিলায় শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর দরকার।








© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};