ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
1783
বিয়ে রেজিস্ট্রি করলে বর-কনের মৃত্যু, দুধ বেচলে বাছুর শেষ!
২০০ বছরের কুসংস্কার!
Published : Wednesday, 2 December, 2020 at 12:42 PM
বিয়ে রেজিস্ট্রি করলে বর-কনের 
মৃত্যু, দুধ বেচলে বাছুর শেষ!তানভীর দিপু:  হাজী আকবর আলীর দুই মেয়েকে বিয়ে দেয়া হয়েছে রেজিষ্ট্রি-কাবিনানামা করেই। অথচ চার ছেলেকে বিয়ে করিয়ে আনতে করা হয় নি কোন কাবিননামা কিংবা রেজিষ্ট্রি। বিয়ের রেজিষ্ট্রি হলে বর-কনের কেউ একজন মারা যাবে এমন বিশ্বাস থেকেই ছেলেদের বিয়ে করিয়ে আনতে করা হয় না কাবিননামা। আধুনিক বিশ্বায়নের এই যুগে এমন কুসংস্কার নিয়ে ২০০ বছর ধরেই বসবাস করছে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার মাজিদপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের হাজী বংশের অন্তত ৮০টি পরিবার। এসব রীতি মানা সবাই হাজী বংশের উত্তরসূরী বলে জানা গেছে। নারীদের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে বিয়ের কাবিননামা বা রেজিষ্ট্রি করা যেখানে দেশে প্রচলিত আইনের একটি, সেখানে এমন রীতি এযুগে বিষ্ময়কর বলে জানিয়েছেন অনেকেই। এপ্রসঙ্গে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান জানান, যেহেতু তারা নিজেদের মধ্যে এইবিশ্বাসগুলো চর্চা করছে। কিন্তু কাবিননামা এখনকার সমাজে একটি অপরিহার্য-সুতরাং নারীর সামাজিক নিরাপত্তা বা দাপ্তরিক কাজকর্মেও প্রয়োজন। সুতরাং এই গোষ্ঠীটি যত তাড়াতাড়ি আরো বেশি শিক্ষা সামজিকতায় প্রবেশ করবে। বিষয়টি জানার পর তিতাস উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাম্মৎ রাশেদা আক্তার বিষ্ময়প্রকাশ করে বলেন, আমি হাজী বংশের কাবিননামা আর দুধ বিক্রি নিয়ে কুসংস্কারটির কথা শুনেছি। কাবিননামা মেয়েদের বিয়ের সামাজিক নিরাপত্তা। গরুর দুধ বিক্রি একটি প্রচলিত লাভজনক ব্যবসা। তাদেরকে এসব ব্যাপারে সচেতন করার জন্য উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, তিতাস উপজেলা সদর থেকে অন্তত ১০ কিলোমিটার পশ্চিমে প্রত্যন্ত গ্রামটির একাংশ জুড়ে বসবাস করে হাজী বংশের পরিবারগুলো। পেশায় বেশির  ভাগ পুরুষই  প্রবাসী কিংবা কৃষক। মহিলারা গৃহিনী। মধ্যবিত্ত অথবা নি¤œমধ্যবিত্ত এই পরিবারগুলোর সন্তারনরা সবাই পড়াশুনা করে। গ্রামে কৃষি কাজের পাশাপাশি গবাদি পশুপালনও যেন এখানে বাধ্যতামূলক। কারো কারো ছোট আকৃতির গরুর খামারও রয়েছে। তবে অবাক করা তথ্য হলো- এই গ্রামের কেউ নিজের গরুর দুধ বিক্রি করেন না। নিজের গরুর দুধ নিজেরাই খান। যদি কেউ দুধ বিক্রি করে তাহলে ওই গরুর বাছুর নিশ্চিত মারা যাবে বলে তাদের বিশ্বাস। পূর্বপুরুষদের কাছ থেকে এমন নির্দেশনাই তারা পালন করছে হাজী বংশের লোকজন। আরো চমকপ্রদ তথ্য হলো, এই বংশের মেয়েদের বিয়ে হলে শ্বশুর বাড়ি গিয়ে গরুর দুধ বিক্রি বা ব্যবসা করার অনুমতি আছে। হাজী বংশের প্রবীণ আশেক আলী বলেন





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};