ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
উপজেলা প্রশাসনের অভিযান দেবিদ্বারে খালের গতিপথে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
Published : Tuesday, 22 September, 2020 at 12:00 AM, Update: 22.09.2020 1:26:54 AM, Count : 299
উপজেলা প্রশাসনের অভিযান দেবিদ্বারে খালের গতিপথে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শাহীন আলম, দেবিদ্বার ||
কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার গুয়াধারা খাল দখল করে শতাধিক অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠেছে। পৌরসভার পান্নারপুল ভিংলাবাড়ি হয়ে গুনাইঘর পর্যন্ত প্রায় ৬ কিলোমিটার দীর্ঘ এ খালটি অবৈধ দখল ও বর্জ্যরে কারণে সরু হয়ে পানিপ্রবাহ কমে যায়। ফলে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কৃষি কাজে সেচ ও পানি নিষ্কাশনে বিঘœ ঘটায় দেবিদ্বার উপজেলা প্রশাসন খালের গতিপথে পানিপ্রবাহ চালু রাখতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে।
সোমবার সকালে ইউএনও রাকিব হাসানের নির্দেশে এ খালের বিভিন্ন স্থানে অবৈধভাবে গড়ে উঠা স্থাপনা উচ্ছেদ করে  পৌরসভার নিযুক্ত শ্রমিকরা। এর আগে গত গত ১৯ সেপ্টেম্বর ইউএনও রাকিব হাসান পান্নারপুল সিএনজি স্টেশনের পাশে গুয়াধারা খালের ওপর অবৈধভাবে নির্মিত দোকানাপাট, স্থাপনা নিজ দায়িত্বে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেন। পরে সোমবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পান্নারপুলে খালের ওপর অবৈধভাবে নির্মিত কয়েকটি দোকান সরিয়ে নেওয়া হয়।  স্থানীয় কৃষক আবদুল কাদের জানান, গুয়াধারা এ খালের পানি বিভিন্ন কৃষি কাজে ব্যবহার করা হয়। এ খালটি প্রাচীন হলেও ধীরে ধীরে এটি তার অস্তিত্ব হারিয়ে আজ অবৈধ দখলে। প্রশাসনের উচ্ছেদ অভিযানের ফলে এ খালটি পুনরায় তার গতিপথ ফিরে পাবে। এতে করে স্থানীয় কৃষকরা লাভবান হবে।  
সোমবার দুপুরে সরেজমিন ঘুরে ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সবচেয়ে দীর্ঘ এ খালটি পৌরসভার ভিংলাবাড়ি, ফতেহাবাদ, সাইলচর, চাপানগর, বিজলিপাঞ্জার, ছোটআলমপুর, ইকরানগরী, ভোষনা হয়ে গুনাইঘর ব্রিকসফিল্ড পর্যন্ত মিশেছে। এ খাল থেকে স্থানীয় কৃষকরা তাদের জমিতে সেচ কাজে পানি ব্যবহার ও মাছের চাহিদা পূরণ করত। খালের বিভিন্ন স্থানে পানিপ্রবাহ রুদ্ধ করে এক শ্রেণীর মানুষ খালের ওপর বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ, বর্জ্যে আবর্জনার স্তুপ ফেলে সচারচর পানির গতিপথ বাধাগ্রস্থ করে। এছাড়া খালের বিভিন্ন অংশে দখলের কারণে খালটি সংকুচিত হয়ে পড়ে। নাব্যতা শূন্য খালটি বর্ষা মৌসুমেও পানির গতিপথ বাধাগ্রস্থ হয়।  দেবিদ্বার উপজেলা প্রশাসন কৃষকের কথা চিন্তা করে দীর্ঘ প্রায় ৬ কিলোমিটার খালের অর্ধশতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদে নামে।
পৌরসভার সার্ভেয়ার মো. সাইফুল ইসলাম জানান, গুয়াধারা খালটি কোথায় ২০ ফুট আবার কোথায় ৩০ ফুল প্রশস্থ রয়েছে। বর্তমানে স্থানীয়রা এ খালের ওপর চলাচল করার জন্য কোথায় বাঁধ, কোথায়ও অবৈধ স্থাপনা, পাকা টয়লেট নির্মাণ, বর্জ্য আবর্জনা ফেলে ভরাট,  খাল দখল করে ঘরবাড়ি ও দোকানপাট নির্মাণ করায় এর প্রশস্থতা অর্ধেকও নেই। পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসানের নির্দেশে খালের পানি প্রবাহ ফিরাতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হচ্ছে।
এ ব্যাপারে  পৌর প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসান বলেন, পৌর এলাকার গুয়াধারা খাল এখন দখলে দূষণে বিপর্যস্ত। এক সময়ের প্রবাহমান ধারা এখন মৃত প্রায়। পৌরসভার জলাবদ্ধতার অন্যতম কারণ ওই খালের দখল ও ভরাট হয়ে যাওয়া। খাল দখলদারদের উচ্ছেদ করে এর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার  চেষ্টা করব। সকলের আন্তরিক সহযোগিতায় আমরা এ খালটিকে  অবস্থায় ফিরিয়ে আনব।
 





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft