ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
126
মাউশির নির্দেশনা মানুন
Published : Tuesday, 12 January, 2021 at 12:00 AM
মাউশির নির্দেশনা মানুনঅভিযোগটি একেবারেই নতুন নয়। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন শিাপ্রতিষ্ঠানে প্রয়োজন নেই এমন অনেক খাত দেখিয়ে অতিরিক্ত ফি আদায় করা হয়। মহামারির কারণে গত মার্চ মাস থেকে দেশের সব শিাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। কিন্তু এর পরও এসব শিাপ্রতিষ্ঠানের শিার্থীদের কাছ থেকে নিয়মিত বেতন যেমন আদায় করা হয়েছে, তেমনি এমন অনেক ফি আদায় করা হয়েছে, যেগুলোর তেমন কোনো প্রাসঙ্গিকতা এখন নেই। প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, ১৮ নভেম্বর মাউশি অধিদপ্তর এক নির্দেশনায় জানায়, বেসরকারি মাধ্যমিক শিাপ্রতিষ্ঠানগুলো (এমপিওভুক্ত ও এমপিওবিহীন) শিার্থীদের কাছ থেকে শুধু টিউশন ফি নিতে পারবে। অ্যাসাইনমেন্ট, টিফিন, পুনঃ ভর্তি, গ্রন্থাগার, বিজ্ঞানাগার, ম্যাগাজিন ও উন্নয়ন বাবদ কোনো ফি নেবে না। আর নেওয়া হলেও তা ফেরত দেবে অথবা তা টিউশন ফির সঙ্গে সমন্বয় করবে। অন্য কোনো ফি অব্যয়িত থাকলে একইভাবে তা-ও ফেরত দেবে বা টিউশন ফির সঙ্গে সমন্বয় করবে। গত বছর যেহেতু সরাসরি কাস হয়নি, তাই যেসব ফি অত্যাবশ্যকীয় নয় বা যা কোনো কাজে আসেনি, সেগুলো টিউশন ফির সঙ্গে সমন্বয় করতে বলেছিল মাউশি অধিদপ্তর। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো শিাপ্রতিষ্ঠান তা করেছে বলে শোনা যায়নি। উল্টো গত বছরের বেতন বকেয়া থাকলে তা পরিশোধে নানাভাবে চাপ দেওয়া হচ্ছে।
গত শিাবর্ষে আমরা অর্ধেক বছরের টিউশন ফি মওকুফের দাবি তুলেছিলাম, তা মানা হয়নি। আবার চলতি শিাবর্ষে নানা ধরনের ফির সঙ্গে অগ্রিম বেতনও নেওয়া হচ্ছে, যা অমানবিক। অভিভাবকরাও স্কুল যা চাচ্ছে, তা দিতে বাধ্য হচ্ছেন। কথা হচ্ছে, সরকারি শিাপ্রতিষ্ঠানের শিক-কর্মচারীরা তাঁদের বেতন-ভাতা যেমন নিয়মিত পাচ্ছেন, তেমনি বেসরকারি এমপিওভুক্ত শিাপ্রতিষ্ঠানের শিক-কর্মচারীরা তাঁদের বেতন-ভাতাদি পাচ্ছেন। তাহলে এ ধরনের চাপ দেওয়া কেন। অনেক শিাপ্রতিষ্ঠানের নামে এ ধরনের অভিযোগ আছে যে এসব প্রতিষ্ঠান শুধু তাদের নামের ওপর ভর করে শিার নামে এক ধরনের ব্যবসা করে থাকে। মহামারির সময় অভিভাবকদের বাড়তি টাকার জন্য চাপ দেওয়া তো এক অর্থে বাণিজ্য করারই শামিল।
যেহেতু সরকারের একটি সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা রয়েছে, সরকারের প্রতিষ্ঠানও রয়েছে বিষয়টি দেখভাল করার জন্য, কাজেই বিষয়টি তাদের দেখা দরকার। কালের কণ্ঠে প্রকাশিত খবরে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত ফি আদায়ের সুনির্দিষ্ট অভিযোগ রয়েছে। বিষয়টি তাদের খতিয়ে দেখা দরকার। যেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, সেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নিলে আরো অনেক প্রতিষ্ঠান এ ধরনের কাজ করবে। আমরা আশা করব শিাপ্রতিষ্ঠানগুলো মাউশির নির্দেশনা মেনে চলবে। কোনো বাড়তি ফি আদায় করবে না। যেসব প্রতিষ্ঠান নির্দেশনা মানবে না, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে, এটাও আমাদের প্রত্যাশা।






© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};