ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
68
ফেসবুকের পক্ষপাতমূলক আচরণ কেন?
Published : Wednesday, 15 September, 2021 at 12:00 AM
ফেসবুকের পক্ষপাতমূলক আচরণ কেন?লীনা পারভীন ||
বর্তমানে গোটা বিশ্বে সামাজিক যোগাযোগের এক নাম্বার মাধ্যম হচ্ছে ফেসবুক। আমেরিকার তৈরি এই এক ফেসবুকের মাধ্যমে একদিকে যেমন কোটি কোটি মানুষ বিশ্বব্যাপী যুক্ত হচ্ছে, আবার এর মাধ্যমে চলে নানা রকম বাণিজ্যও। আধুনিক বিশ্বে তাই ফেসবুকের অস্তিত্ব অস্বীকার করার উপায় নেই। বাংলাদেশে মোট ১৭ কোটি মানুষের মধ্যে প্রায় ১০ কোটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে যুক্ত। ডিজিটাল মিডিয়ার যুগে বাংলাদেশ ফেসবুকের মতো একটি মাধ্যমের জন্য বিশাল সম্ভাবনার বাণিজ্য। অথচ এই মিডিয়ার ওপর বাংলাদেশের কোনও কর্তৃপক্ষের নেই নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা।
অন্যান্য দেশের মতো ফেসবুক এখন বাংলাদেশের রাজনীতিতে অনেক বড় ভূমিকা রাখে। যেকোনও ইস্যুতেই পাবলিক অপিনিয়নের একটি বৃহত্তর প্ল্যাটফর্ম এই ফেসবুক। অতি অল্প সময়ে বেশি সংখ্যক মানুষের সঙ্গে যোগাযোগের এমন সহজ মাধ্যম এখনও সৃষ্টি হয়নি। বাংলাদেশে শত শত কোটি টাকার বাণিজ্য চলে এই ফেসবুককে কেন্দ্র করে, যাকে এফ কমার্স বলা হয়। অথচ উপকারী এই মাধ্যমটির বিরুদ্ধে এরইমধ্যে উঠেছে নানা অভিযোগ। ফেসবুকের জনপ্রিয়তার সুযোগ নিয়ে নানা সময়ে বিভিন্ন ধরনের গুজব বা ফেইক সংবাদ প্রচার করে দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যবস্থাকে অস্থির করে তোলার চেষ্টাও দেখেছি। ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের পেইজ বা গ্রুপের মাধ্যমে চলছে ব্যক্তি, সরকার বা রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন ধরনের হেইট স্পিচ। মিথ্যা সংবাদকে অতি দ্রুত বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার মাধ্যম এখন ফেসবুক। কোটাবিরোধী আন্দোলন বা সাম্প্রতিক এমন অনেক আন্দোলনের সময় আমরা সেসবের উদাহরণ পেয়েছি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থেকে শুরু করে সাকিব আল হাসানের মতো ব্যক্তিত্বদের নিয়েও সরাসরি আক্রমণমূলক বক্তব্য ও ভিডিও ফেসবুকের বুকে ঘুরেছে অহরহ, কিন্তু এসবের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ না নিয়েছে ফেসবুক, না নিতে পেরেছে আমাদের সরকার বা কর্তৃপক্ষ। সরাসরি হত্যার হুমকিও দেওয়া হচ্ছে সেখানে। বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালগুলোর সংবাদ যখন শেয়ার হয়, সেখানে কমেন্ট সেকশনগুলোতে গেলে রীতিমতো আতঙ্কিত হতে হয় যে এটা কোন দেশ? অথচ সেখানে ফেসবুকের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড কাজ করে না। রিপোর্ট করেও কোনও সুরাহা পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে যারা লেখালেখি করছেন বা বিভিন্ন সময়ে মৌলবাদ জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যারা পোস্ট করেন, এমন অনেকের লেখাকে কেন্দ্র করে কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড ভঙ্গের নামে আইডি রেস্ট্রিক্ট করা হচ্ছে। কারও পোস্ট রিচ কমিয়ে দেওয়া হচ্ছে, এমনকি বিভিন্ন মেয়াদে ব্যান দেওয়া হয়েছে।
ফেসবুকের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড আসলে কী? এই স্ট্যান্ডার্ডের উদ্দেশ্য কী? এর উদ্দেশ্যই হচ্ছে সব ব্যবহারকারীর মধ্যে একটি স্বচ্ছ যোগাযোগ ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। তারাই বলছে এই স্ট্যান্ডার্ড দেশ বা সীমা নির্বিশেষে সবার জন্য প্রযোজ্য। সহিংসতা তৈরি করতে পারে এমন সব ধরনের কনটেন্টকে তারা নিয়ন্ত্রণ করবে। বাস্তবে আমরা কী দেখছি? ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধের সময়কার গণহত্যার ছবি পোস্ট দিলে সেটাকে স্ট্যান্ডার্ডের অজুহাতে সরিয়ে ফেলা হচ্ছে, মৌলবাদ বা জঙ্গিবাদ নিয়ে কোনও লেখা দিলে সেখানে তারা স্ট্যান্ডার্ডের নীতি দেখাচ্ছেন, কিন্তু কাউকে সরাসরি মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া ভিডিও বা পোস্ট থেকে যাচ্ছে অনায়াসে। মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে অনেক দিন ধরেই কাজ করছে একজন ব্লগার অমি রহমান পিয়াল। সম্প্রতি তিনি লিখিত একটি কলামে ফেসবুক নিয়ে যে অভিযোগ এনেছেন সেটি মারাত্মক। মাসের পর মাস তাকে ব্যান করে রাখা হচ্ছে কেবল মুক্তিযুদ্ধ বা সরকার পক্ষীয় পোস্টের জন্য। তিনি অভিযোগ করেছেন, অনেকবার অ্যাপ্লাই করার পরও তাই আইডি ভ্যারিফাইড হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হচ্ছে না। লাখো ফলোয়ারের আইডি হয়েও তার সব লেখা ফলোয়ারদের কাছে পৌঁছায় না। এমনকি কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ডের অজুহাতে তার মেসেঞ্জারকেও ব্লক করে দেওয়া হয়েছে অথচ মেসেঞ্জার কিন্তু পাবলিক স্পেস না। মেসেঞ্জারে একজন ব্যবহারকারী অনেক ধরনের মেসেজ আদান-প্রদান করেন, যা মূলত ওয়ান টু ওয়ান হয়ে থাকে। এ বিষয়টি অত্যন্ত ভয়ংকর। ফেসবুক ঘোষণা দিয়ে থাকে তাদের ডাটা প্রাইভেসি আছে। একজনের মেসেঞ্জারে কী আদান-প্রদান হয় সেটি নিশ্চয়ই কেউ রিপোর্ট করেনি বা কারও অনুভূতিতে আঘাত করেনি। তার মানে ফেসবুক নিজেই এটি মনিটরিং করছে এবং নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। এখানে ডাটা প্রাইভেসি কোথায়? মেসেঞ্জারের তথ্য যে কোথাও পাচার হচ্ছে না সেই বিশ্বাস কিন্তু এখন প্রশ্নবিদ্ধ।
অভিযোগ উঠেছে ফেসবুকের নিয়োগকৃত এ অঞ্চলের বাংলাদেশি মডারেটরদের বিরুদ্ধে। মূলত ফ্যাক্ট চেকিংয়ের নামেই এসব করছে তারা। আমি নিজেও এর ভিকটিম। একটি অত্যন্ত সাধারণ পোস্টের অজুহাতে আমাকে ব্যান করা হয়েছিল, এমনকি বর্তমানে আমি কোনও লাইভ স্ট্রিমিং চালাতে পারি না। কেন এই দ্বিচারিতা? বহুবার আমাদের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে এগুলো নিয়ে, কিন্তু তিনি অসহায়ত্ব প্রকাশ করেছেন।
রাষ্ট্রের ক্ষমতার কাছে কি ফেসবুক এতটাই শক্তিশালী হয়ে গেলো? ফেসবুকের বিরুদ্ধে এমন পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ উঠেছিল ভারতেও। এমনকি আমেরিকার নির্বাচনের সময় তো তুলকালাম ঘটেছিল। কই, সেসব দেশ তো ফেসবুকের পরোয়া করেনি। ফেসবুক ঠিকই সেসব দেশের নিয়ম শ্রদ্ধা করতে বাধ্য হয়েছে। তাহলে আমাদের জন্য কেন সেটা প্রযোজ্য হবেনা? অন্তত ফেসবুকের এ দেশীয় যেসব ফ্যাক্ট চেকার আছে তাদের ব্যাকগ্রাউন্ড তো সরকার চেক করতেই পারে। তারা কারা? কী তাদের রাজনৈতিক বিশ্বাস বা তারা যে পক্ষপাতিত্ব করছে, এর প্রমাণ তো আমাদের কাছে প্রচুর আছে। সেসব নিয়ে কেন আমরা ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানাতে পারছি না? ভূরি ভূরি ভিডিও/পেইজ/গ্রুপ আছে যারা অহরহ কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড ভঙ্গের মতো কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে, অথচ সেগুলোর বিরুদ্ধে রিপোর্ট করলেও অগ্রাহ্য হচ্ছে।
সামনে নির্বাচন। আমার আশঙ্কা মৌলবাদ বা উগ্রবাদীরা এর সুযোগ নিতে শুরু করেছে। অনলাইনে ফাইটারদের কোণঠাসা করে দেওয়া হচ্ছে। গুজব ছড়িয়ে দেশে যেকোনও সময় একটি অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করতে পারে। সরকারের উচিত এই বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে বিবেচনায় আনা। অন্যথায়, সরকারের অন্যতম সফল ডিজিটাল বাংলাদেশের ফলাফল তাদের বিরুদ্ধেই ব্যবহৃত হবে।





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩, +৮৮ ০১৭১১ ৯৯৭৯৬৯, +৮৮ ০১৯৭৯ ১৫২৪৪৩
ই মেইল: [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩, +৮৮ ০১৭১১ ৯৯৭৯৬৯, +৮৮ ০১৯৭৯ ১৫২৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};